June 3, 2023
পিটিশন স্বাক্ষরে কি আবারও গড়াতে পারে ফাইনাল ম্যাচ।

পিটিশন স্বাক্ষরে কি আবারও গড়াতে পারে ফাইনাল ম্যাচ।

পিটিশন স্বাক্ষরে কি আবারও গড়াতে পারে ফাইনাল ম্যাচ। আবারও হতে যাচ্ছে বিশ্বকাপে ফাইনাল ম্যাচটি। বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা-ফ্রান্স ম্যাচটি শেষ হলোও শেষ হয়নি রেফারি বির্তক। বির্তকে জেত ধররেই উত্তেজনা গড়িয়েছে পিটিশন স্বাক্ষর পর্যন্ত। পুররায় ম্যাচ আয়োজন চায়ছেন ফ্রান্সের সার্থকেরা। এমন দাবি তে ফ্রান্সে চলছে পিটিশন স্বাক্ষর। পুনরায় ম্যাচ আয়োজন এতি মধ্যমে স্বাক্ষর করেছে প্রায় ২ লক্ষ মানুষ।

স্বাক্ষরকারীদের বেশির ভাগ ফ্রান্সের হলেও আর্জেন্টিনার সমার্থকে কাছে এই যেন মামা বাড়ির আপদার, আবারও কেন ফাইনাল খেলতে হবে। ফ্রান্স সমার্থকের দাবি ম্যাচের দুর্নীতি করেছেন ম্যাচের থাকা রেফারি। সেই দুর্নীতির জন্য আবারও আয়োজন করতে হবে বিশ্বকাপ ফাইনাল।

এমন দাবিতে আলোচনা চলছে বিশ্ব মিডিয়া কিন্তু, কেন এমন দাবি ফ্রান্স সমার্থকদের। আর পিটিশন স্বাক্ষর হলেও কি মাঠে গড়াবে ফাইনাল নাকি ফ্রান্সের ধারে নিজেদের শান্ত দিতে এমন উদ্যোগ ফ্রান্স সমার্থকদের।

আর্জেন্টিনা ও ফ্রান্সের ফাইনালে ম্যাচকে সর্বকালে সেরা বিশ্বকাপ হিসাবে ঘোষণা করেছে ফিফার প্রধান কর্তা। কেবল ফিফার সভাপতি নয় এমন দাবি বেশি ভাগে ফুটবল প্রেমিদের। দুই হট ফেবারিট ও যোগ্য দল হিসাবে ফাইনাল উঠে ফ্রান্স- আর্জেন্টিনা।

শিরোপা জয়ের মহা লড়াইয়ে

শিরোপা জয়ের মহা লড়াইয়ে ৯০ মিনিট টান টান উত্তেজিতনার ম্যাচে দুই দুই গোলো সমতা থেকে গড়িয়েছে অতিরিক্ত সময়ে। পরে ৩০ মিনিটে দুই দলের গোল সংখ্যা ৩/৩। এই যেন হার নাহ মানা লড়াকু মানসিকতার চড়ান্ত প্রদর্শনি।


পিটিশন স্বাক্ষরে কি আবারও গড়াতে পারে ফাইনাল ম্যাচ। টাফেগারে আগে প্রতিটা মুহূর্ত ছিলো সমার্থকের কাছে খুবই রোমানচকর। নানা বাগ আর শ্বাসরুদ্র উত্তেজানয় দু দলের সমার্থকরা ছিলেন অনিশ্চিতায়, ফলাফল কি হতে যাচ্ছে শেষ পর্যন্ত। অবশেষে গত ৩৬ বছরে অদুরা ট্রপি ঘরে তুলে আর্জেন্টিনা। টাইবেকারে ৪-২ গোলে হারালেও ম্যাচে মুলে সময়ে রেফারি নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে ফ্রান্সের ভক্তরা সমার্থকেরা।

টাইবেকারে নির্ধারিত সময় পূর্ব ৩-৩ গোল সমসতায় ছিলো দুটি দল। কিন্তু ২৩ মিনিট মাথায় পলিস রেফারি সিমনমার্টিন দেওয়ার পেনাল্টি সিদ্ধান্ত নিয়ে বির্তক চলছে সেই থেকেই। অনেকে মনে করে ডি বাক্স ভিতরে ফাউল হয়নি ডিমারিয়াকে ফেলে দেওয়ার মাধ্যমে।

ফ্রান্সে ভক্তদের মতে ডাইট দিয়ে পেনাল্টি আদায় করে নেন ডিমারিয়া।যা থেকে প্রথম গোল হয়ে বলে দাবি তাদেরএর পরে ডিমারিয়ার ৩৬ মি আগে ডিমারিয়ার করা গোলটি সময় ফাউলের স্বীকার হয়ে এমবাপ্পে। অথচ রেফারি নাকি সেটি দেখে নি।

এই যুক্তি তর্কও কম হয় নি। তবে ব্যাপারটি এখন যুক্তি তর্কে সীমাবদ্ধ নয় অনলাইনে পিটিশনে প্লাটফর্ম mesopinions এ ম্যাচে পুনরায় খেলার দাবিতে চলছে পিটিশন স্বাক্ষর। পিটিশনে নাম দেওয়া হয়েছিলো রেফারেন্স কে কিনে নেওয়ায় হয়ছিলো পেনাল্টি হয় নাহ দ্বিতীয় গোলের আগে এমবাপ্পে ফাউলের স্বীকার হয়।

তিনটা দাবিকে সমানে আনা হয়চ্ছে পিটিশনের মাধ্যমে।

ম্যাচটি পুনরায় দাবিতে স্বাক্ষর করুন। পুনরায় ম্যাচ আয়োজনে মুলতে তিনটা দাবিকে সমানে আনা হয়চ্ছে পিটিশনের মাধ্যমে।

আর্জেন্টিনার প্রথম ও শেষ গোলটি অনৈতিক বলে দাবি করেন।নিজের দ্বিতীয় দল এর তৃতীয় গোল করে লিট এনে দেন মেসি।কিন্তু ঐ সময় মাঠে ভিতের ছিলেন আর্জেন্টিনার ব্যাঙ্চে থাকা দুই ফুটবলার।

এই সময় উল্লাস করতে গিয়ে মাঠে ডুকে পড়েন দুই ফুটবলার। এই ছবিটি কে কেন্দ্র করে ম্যাচটিকে পুনরায় আয়োজন করার দাবি জানান তারা।

Read More-বিশ্বকাপে কাতারের ২২০ বিলিয়ন ডলার পুরোটাই লস ?

এই economictimes.com জানিয়েছেন গত কাল পর্যন্ত এই পিটিশনে স্বাক্ষর সংখ্যা ছাড়িয়ে প্রায় দু লক্ষ। আর এই সংখ্যা আরও বাড়াটা স্বাভাবিক। তবে এখনই এই পিটিশনে উঠে এসেছে সর্বোচ্ছ স্বাক্ষর কারী বিশ পিটিশনের তালিকায়। ৫ লাখ স্বাক্ষর টপকে গেলে ফারসি অনলাইন প্লাটফর্ম স্বাক্ষর নেওয়ার তিনটি পিটিশনের একটি হবে এটি। তাহলে কি পারবেন পিটিশন স্বাক্ষর মাধ্যমে নতুন করে ম্যাচ আয়োজন ফ্রান্স ভক্তরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *